• ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২০শে সফর, ১৪৪৩ হিজরি

ভোলায় মামলাবাজ ও পরকীয়াবাজ স্ত্রীকে নিয়ে বিপাকে রিকশা চালক নোমান

বিডিক্রাইম
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১, ২২:৪২ অপরাহ্ণ
ভোলায় মামলাবাজ ও পরকীয়াবাজ স্ত্রীকে নিয়ে বিপাকে রিকশা চালক নোমান
আকতারুল ইসলাম আকাশ,ভোলা: ভোলা সদর উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডে এক মামলাবাজ ও পরকীয়াবাজ স্ত্রীকে নিয়ে চরম বিপাকে রয়েছেন নোমান নামে এক রিকশা চালক।
মামলাবাজ ও পরকীয়াবাজ স্ত্রীর নাম মর্জিনা বেগম। ৩ সন্তানের ওই জননী একই উপজেলার পশ্চিম ইলিশা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের জয়নাল মজিবুলের মেয়ে এবং রিকশা চালক নোমানের স্ত্রী।
অসহায় রিকশা চালক নোমান কোথায়ও কোনো ন্যায় বিচার পায়নি বলে দাবি করেন গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে ৷ বরং স্থানীয় কোনো জনপ্রতিনিধিদের কাছে মামলাবাজ ও পরকীয়াবাজ স্ত্রীর বিচার চাইলে মিথ্যা নারী ও শিশু নির্যাতনের মামলায় পড়ে জেল খাটতে হয়েছে মাসের পর মাস।
এমনকি পুত্রবধূর মিথ্যা মামলায় চরম হয়রানির শিকার হয়ে দুশ্চিন্তায় অকাল মৃত্যুবরণ করেছেন নোমানের বাবা।
ভুক্তভোগী রিকশা চালক নোমান জানান, বিয়ের ৬ বছর পর থেকেই বেপরোয়া হয়ে উঠে মর্জিনা। কথায় কথায় কোনো অমিল হলেই নারী ও শিশু নির্যাতন মামলা দায়ের করে মাসের পর মাস জেল খাটান নোমানকে।
নোমানকে জেলে রেখেই পরকীয়া প্রেমিকদের সাথে প্রেমে মগ্ন হয়ে উঠেন মর্জিনা। নোমান জেল থেকে জামিনে বের হয়ে স্ত্রীর পরকীয়া প্রেম বাঁধা দিলেই আবারও নোমানের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করে জেল খাটাতেন এই মামলাবাজ ও পরকীয়াবাজ মর্জিনা বেগম।
নোমান আরও জানান, বিয়ের পর থেকে সে দাম্পত্য জীবনে অসুখী। কোনো ভাবেই তিনি স্ত্রীর পরকীয়া প্রেম ছাড়াতে পারেননি।
স্থানীয়রা জানান, মর্জিনা বেগম একজন চরিত্রহীন নারী। রাজাপুর ইউনিয়ন জুড়ে রয়েছে তাঁর অহরহ বদনাম। যেকোনো সময় যে কাউকে ফাঁদে ফেলে নানান অপকর্ম চালিয়ে যেতেন তিনি। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ কারো কোনো কথাই কর্ণপাত করতেন না এই মর্জিনা।
সম্প্রতি রোববার সকালে স্থানীয় আবু তাহের নামে এক প্রবাসীর বাড়িতে পরকীয়া প্রেমের দাবি নিয়ে দীর্ঘ ৩৮ ঘন্টা অনশন করেন মর্জিনা। যা নিয়ে এখনো চলছে নানান নাটকীয়তা।
এদিকে চরিত্রহীন স্ত্রীর এমন বেপরোয়া চলাফেরা ও রোববারের ঘটনার পর ওই এলাকা জুড়ে শুরু হয়েছে চাঞ্চল্যে। গ্রাম থেকে হাট-বাজার এমনকি শহর পর্যন্ত এনিয়ে নানান আলোচনা-সমালোচনা চলছে।
এদিকে রোববারের ঘটনার পর লোকলজ্জায় মামলাবাজ ও পরকীয়াবাজ স্ত্রীর হাত থেকে মুক্তি পেতে রাস্তাঘাটে ঘুরে বেড়াচ্ছেন অসহায় দরিদ্র রিকশা চালক নোমান।
এলাকাবাসীরা জানান, চরিত্রহীন মর্জিনার কয়েকদিন পরপর এমন অপকর্মে সমাজে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে কিশোর কিশোরীরা। দিনরাত তাঁর এমন অপকর্ম থেকে মুক্তি চায় রাজাপুরবাসী।
অন্যদিকে মামলাবাজ ও পরকীয়াবাজ মর্জিনার মিথ্যা মামলা ও নির্যাতন থেকে মুক্তি চান অসহায় রিকশা চালক নোমান।