ভোলায় বাসর ঘরে নববধূর সাথে দেন মোহর নিয়ে বাকবিতান্ডা অতপর লাশ

প্রকাশিত: ২:৪৯ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২০, ২০১৯

ভোলায় বাসর ঘরে নববধূর সাথে দেন মোহর নিয়ে বাকবিতান্ডা অতপর লাশ

আকতারুল ইসলাম আকাশ, ভোলা ॥ ভোলার পূর্ব ইলিশা ইউনিয়নের ০৮নং ওয়ার্ড থেকে বাসর রাতে এক শিক্ষকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার ভোর ৫টার দিকে ওয়ার্ডের গুপ্ত মুন্সি গ্রামের আমিনুল মাষ্টার বাড়ি থেকে এই লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহতের নাম মোঃ মনির হোসেন (৩০) সে আমিনুল মাষ্টারের ছেলে বলে জানা যায়। তিনি রাজাপুর ২২নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকপদে কর্মরত আছেন।

নিহত ছেলের ভাই এনামুল হক সবুজ ও ভাবি সামসুনাহার শিবলা জানান, শুক্রবার (১৬ আগষ্ট) ভোলা চরনোয়াবাদ পুলিশ লাইনের মোঃ মাহে আলমের মেয়ে বিবি জয়নব (২৪) বেগমের সাথে বিবাহ হয় মনির হোসেনের।

সোমবার (১৯ আগষ্ট) বর পক্ষের লোকজন মেয়ের বাড়িতে গিয়ে ধুমধাম আয়োজনে মেয়েকে ছেলের বাড়িতে নিয়ে আসে। সোমবার রাত প্রায় ১১টা ৪০ মিনিটের দিকে ছেলে বাসর ঘরে প্রবেশ করে।  রাত আনুমানিক ১টার দিকে নব বধূর সাথে দেন মোহরের কথাবার্তা শেষ করে বাসর ঘর থেকে বের হয় মনির। প্রায় ৩০ মিনিট পর নববধূ জয়নব বেগম তাকে দেখতে না পেয়ে ঘরের ভিতরের বাথরুম ও ওয়াশরুমে তাকে খোঁজতে থাকে।

না পেয়ে তিনি বাসর ঘরে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। পরে ভোর ৫টার দিকে বাড়িতে ডেকোরেটরের লোক এসে ঘরের সামনের আড়ার সাথে তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান।

খবর পেয়ে ইলিশা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ শ্রী রতন দাস লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ভোলা সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।

হঠাৎ মৃত্যুর এমন মর্মান্তিক ঘটনার জন্য নববধূ দায়ী বলে অভিযোগ করেন নিহত মনিরের স্বজনরা। তাঁদের দাবি বাসর ঘরে নববধূর সাথে মনোমালিন্য হয়েছে তার। আর এর জের ধরেই মনির আত্নহত্যা করেছে।

তবে এই বিষয়ে ইলিশা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ শ্রী রতন দাস বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ভোলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। মৃত্যুর কারণ সঠিক ভাবে এখনো জানা যায়নি। তবে নববধূকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ভোলা সদর থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।

Shares