• ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , ১০ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

বরিশাল-৫: জাহিদ ফারুকের সামনে এখন ফ্যাক্ট সাদিক আব্দুল্লাহ!

বিডিক্রাইম
প্রকাশিত নভেম্বর ২৭, ২০২৩, ২১:১২ অপরাহ্ণ
বরিশাল-৫: জাহিদ ফারুকের সামনে এখন ফ্যাক্ট সাদিক আব্দুল্লাহ!

বিডি ক্রাইম ডেস্ক, বরিশাল ॥ বরিশাল সদর ৫ আসনে জাহিদ ফারুক শামীমকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেয়ার পরে আনন্দ উল্লাস করতে দেখা গেছে তার অনুসারীদের। তবে দলীয় মনোনয়ন পেয়েও জাহিদ ফারুক ও তার অনুসারীদের মাথা ব্যথার কারন হয়ে উঠতে পারেন সাবেক মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ।

একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছেন, বিভাগের মর্যাদয়াপূর্ণ বরিশাল-৫ আসনে সতন্ত্র প্রার্থী হতে পারেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ।

মহানগর শ্রমিকলীগের সাধারন সম্পাদক রইজ আহমেদ মান্না তার নিজস্ব ফেইসবুক আইডিতে পোষ্ট করে লিখেছেন,’বরিশাল বাসির মুখে আগামী ৭ ই জানুয়ারী পর্যন্ত একটা নামই শুনবে সবাই ইনশা আল্লাহ, সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ ভাই। ৭ ই জানুয়ারি সারা দিন সাদিক আব্দুল্লাহ ভাইকে ভোট দিন।’

আর বরিশালল সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আশিকুর রহমান সুজন ফেইসবুকে লিখেছেন,’আমার ভোট ৭ জানুয়ারি এইবার আমি সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ ভাইকে দিবো, আপনার ভোট কি আপনি দিবেন সাদিক ভাইকে?

সম্প্রতি জাতীয় নির্বাচনকে উৎসব ও প্রতিযোগিতামূলক করতে নৌকার প্রার্থীর পাশাপাশি স্বতন্ত্রভাবে কেউ প্রার্থী হলে তাকেও সহযোগী ও উৎসাহ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ হাসিনা। তারই ধারাবাহিকতায় বরিশাল-৫ আসনে সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ সতন্ত্র প্রার্থী হচ্ছেন বলে গুঞ্জন উঠেছে।

আর সাদিক আব্দুল্লাহর প্রার্থী হওয়ার ঘোষণায় মহা দু:শ্চিন্তায় পড়েছেন জাহিফ ফারুক অনুসারীরা। কারন গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাহিদ ফারুক শামীমের বিজয়ের পেছনে মূল ভূমিকায় ছিলেন তৎকালীন সিটি মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ। পরে অবশ্য জাহিদ ফারুকই নানাভাবে সাদিক আব্দুল্লাহর বিরোধীতা করেছেন। এমনকি গত সিটি নির্বাচনে খোকন সেরনিয়াবাতের মনোনয়ন পাওয়ার জন্য কাজও করেছেন তিনি।

আর সিটি নির্বাচনে মনোনায়ন না পাওয়ার পরে সাদিক আব্দুল্লাহকে বরিশাল সদর আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে চায় তৃণমূল আওয়ামী লীগ কারন তৃণমূলের মানুষের কাছে এক প্রিয় নাম সাদিক আব্দুল্লাহ।

জনশ্রুতি আছে সাদিক আব্দুল্লাহর কাছে পৌঁছাতে পারলে কেউ খালি হাতে ফিরেছেন এমন কাউকে খুজে পাওয়া যাবে না। সেভাবেই হোক সহযোগিতা করে যেকোন সমস্যার সমাধান করে দিয়েছেন তিনি, সে সিটির বাসিন্দা কিংবা সদর উপজেলার বাসিন্দা হোক না কেন।

অন্যদিকে জাহিদ ফারুকে সানিধ্য পাওয়ার সুযোগ খুবই কম হয়েছে বরিশাল সদরের বাসিন্দাদের। ক্লিন ইমেজের নেতা হলেও বরিশাল সদর উপজেলার প্রত্যান্ত অঞ্চলের মানুষ তাকে কাছে পেয়েছে একেবারেই কম সে হিসেবে জাহিদ ফারুকের চেয়ে বরিশাল মহানগর এবং সদর উপজেলায় বেশ জনপ্রিয় সাদিক আব্দুল্লাহ।

তবে শেষ পর্যন্ত সাদিক আব্দুল্লাহই হচ্ছেন জাহিদ ফারুকের মূল প্রতিদ্বন্ধি নাকি আসছে অন্য কোন চমক, সেটিই এখন দেখার পালা