• ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২০শে সফর, ১৪৪৩ হিজরি

বরিশালে কথিত সাংবাদিকদের ছত্রছায়ায় রোগীর দালাল’রা

বিডিক্রাইম
প্রকাশিত জুলাই ২২, ২০২১, ১৮:৩২ অপরাহ্ণ
বরিশালে কথিত সাংবাদিকদের ছত্রছায়ায় রোগীর দালাল’রা

বিডি ক্রাইম ডেস্ক, বরিশাল ॥  বরিশাল নগরীতে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে রোগীর দালালদের সংখ্যা। আর এদের জন্য সঠিক চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সাধারণ মানুষ।

বরিশালে বেশ কয়েকটি ঘটনায় আলোড়ন শুরু হলেও কথিত সাংবাদিকদের কারনে তা পার পেয়ে যায়।পুলিশের অভিযানে রোগীর দালাল আটক করলেও পরতে হয় বিপদে।

সেই কথিত সাংবাদিকদের ফোন আর দাপটের কাছে চুপ হয়ে যায় প্রশাসন। আর রোগীর দালালরা থাকেন কেউ থাকেন লঞ্চঘাটে বা বাস টার্মিনালে, কেউ জনবহুল এলাকায়, আবার কারো অবস্থান সরকারি হাসপাতালগুলোর চিকিৎসকের কক্ষের সামনে।

অন্যদের কাছে নিজেদের পরিচয় দেন মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভ। সখ্যতা গড়ে তোলার পর চিকিৎসা বিজ্ঞানের মহাবিশারদ হিসেবেও জাহির করেন অনেকে।

বরিশাল নগরীতে এসব মানুষ পরিচিত ‘রোগীর দালাল’ হিসেবে। বিভিন্ন স্থান থেকে রোগীদের বুঝিয়ে নির্দিষ্ট ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও চিকিৎসকদের কাছে নিয়ে প্রতারণা করাই তাদের কাজ।

বরিশালে চিকিৎসা নিতে যাওয়ার পর অনেক রোগী ও স্বজনই এসব দালালের খপ্পরে পড়েন। এরপর চিকিৎসা ও বিভিন্ন পরীক্ষার নামে তাদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়া হয় মোটা অংকের টাকা।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, বিভাগের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল নগরীতে আসা রোগীদের টার্গেট করে থাকেন এসব দালালরা। তাদের সংখ্যা ৩০০ এর বেশি।

তারা রোগীদের মিথ্যা তথ্য দিয়ে নির্দিষ্ট ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও চিকিৎসকের কাছে নিয়ে প্রতারণা করে থাকেন। এর জন্য ওই সব ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও চিকিৎসকদের কাছ থেকে রোগীপ্রতি নির্দিষ্ট কমিশন পান তারা।

অভিযোগ, এসব দালালদের কোনো সমস্যা হলে সমাধান করেন স্থানীয় কয়েকজন আওয়ামী লীগ নেতা ও কথিত সাংবাদিকরা। পুলিশের কয়েকজন কর্মকর্তাও এর সঙ্গে জড়িত।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ধরা পড়লেই এদের পরিচয় জানা যায়। তবে জরিমানা বা মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পাওয়ার পর আবার শুরু করেন একই কাজ।

স্থানীয়রা জানান, নগরীর রুপাতলী বাস টার্মিনাল, বরিশাল কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল নথুল্লাবাদ এবং লঞ্চঘাটে যারা রোগী জন্য অপেক্ষা করেন তাদের বলা হয় ‘হ্যান্ডেল ম্যান’।

দূর দূরান্ত থেকে আসা রোগীদের সঙ্গে তারা প্রথমে সখ্যতা গড়ে তোলেন। এরপর জানতে চান কোন চিকিৎসকের কাছে এসেছেন?

রোগী বা স্বজনরা যে চিকিৎসকের কথা বলেন সেই চিকিৎসক বরিশালে নেই বা নানা মিথ্যা তথ্য নিয়ে নির্দিষ্ট চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান তারা।

এসব দালালদের অধিকাংশই থাকেন বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং বরিশাল জেনারেল হাসপাতালে।

পরিপাটি পোশাক ও হাতে ব্রিফকেস নিয়ে দুই হাসপাতালে প্রায় ২০০ মতো দালাল চিকিৎসকের কক্ষের সামনে ঘোরাঘুরি করেন।

হাসপাতালে চিকিৎসক দেখানোর পর কারো কোনো পরীক্ষা করাতে হলেই তারা সুযোগ নেন। ভালো ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কথা বলে রোগীদের নিয়ে যান নামসর্বস্ব ডায়াগনস্টিক সেন্টারে। অভিযোগ, এর সঙ্গে জড়িত রয়েছেন হাসপাতালের কর্মচারীরাও।

নগরীর জনবহুল এলাকা সদর রোড, এ্যাপোলো ডায়াগনস্টিক, বিবির পুকুর পাড় এবং ইসলামি ব্যাংক হাসপাতালের সামনেও থাকেন অনেকে।

নগরীর বাটার গলিতে থাকা এমন দুজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, পরীক্ষার জন্য যে টাকা নেয়া হয় তার ৩০ ভাগ পান তারা। কোনো চিকিৎসকের কাছে রোগী পাঠানো হলে সেই চিকিৎসকের ফি ৮০০ টাকা হলে দালাল পায় ৩০০ টাকা।

লঞ্চঘাট ও বাস টার্মিনালে থাকা দালালদের কৌশলও জানান তারা। বলেন, এসব ব্যক্তিরা প্রথমে ফুঁসলিয়ে রোগীর কাছ থেকে ফোন নিয়ে কৌশলে আউটগোয়িং কল বন্ধ করে দেন।

এরপর তারা যে চিকিৎসকের কাছে এসেছে তাদের দাদি নানি কেউ মারা গেছেন বা অন্য কোনো মিথ্যা তথ্য দিয়ে নিজেদের ঠিক করা রিকশায় চুক্তিবদ্ধ ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও চিকিৎসকের কাছে পাঠায় দেন।

যে চিকিৎসকের কাছে পাঠান, তারা সব বিষয়ে পারদর্শী। নাক, কান, গলা সব রোগের সমাধানই থাকে তাদের কাছে। এরপর তারা একটার পর একটা টেস্ট দিতে থাকেন রোগীদের। গরীব রোগীদের সব টাকা হাতানো শেষে শান্ত হয় ডায়াগনস্টিক সেন্টার কর্তৃপক্ষ।

বরগুনার বেতাগীর বাসিন্দা ফরিদা বেগম বলেন, ‘২০১৮ সালের দিকে শারীরিক সমস্যা নিয়ে ডাক্তার অসীত ভূষণ দাস স্যারের কাছে যাওয়ার জন্য বরিশালে এসেছিলাম।

কিন্তু রুপাতলী বাস টার্মিনালে নামার পরে একজন লোক আমার সঙ্গে বেশ ভালোভাবে কথা বলতে থাকে। পোষাকও ভালো ছিল।

‘এক সময় সে জিজ্ঞাসা করে কোন ডাক্তারকে দেখাবেন? আমি বলি, অসীত ভূষণ দাসকে দেখাব। এরপর ওই লোক বলে ডাক্তার অসীত ভূষণ তো মারা গেছেন। তার জায়গায় নতুন আরও একজন ডাক্তার এসেছেন। সে অনেক ভালো ডাক্তার।

তিনি আরও বলেন, ‘এমনভাবে সে বুঝিয়েছে যে শেষ পর্যন্ত গিয়েছিলাম। যার কাছে নিয়ে গিয়েছিল তার নাম ছিল ডাক্তার মাহফুজ। এর মধ্যে আমার ভাই আমাকে ফোন করলে পুরো বিষয়টি তাকে বলি।

‘সে আমাকে সেখান থেকে বের হয়ে যেতে বলে এবং আমি দালালের খপ্পরে পড়েছি বলে জানায়। পরে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি, অসীত ভূষণ স্যার জীবিত রয়েছেন। তার মিথ্যা মৃত্যুর কথা ছড়িয়ে আমাকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে।’

পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার মহিপুর এলাকার বাসিন্দা জসীম উদ্দিন বলেন, ‘গত বছরের শেষ দিকে আমার মায়ের নিউরোর সমস্যা নিয়ে বরিশালের বেলভিউ ডায়াগনস্টিকে ডা. অমিতাভ সরকারের কাছে আসার উদ্দেশে বরিশালে আসি।

‘বেলভিউ ডায়াগনস্টিকের গলির মাথায় দুজন লোক নানা ছলে-বলে কথা শুরু করে এবং অমিতাভ সরকার ভারতে রয়েছেন বলে জানায়।

তিনি আরও জানান, ‘জেনারেল হাসপাতালের সামনে ভালো ডাক্তার বসে জানিয়ে আমাদের নিয়ে যায়। এরপর অনেক টেস্ট দেয়। সেগুলো করানোর পর বন্ধুদের সঙ্গে আলাপ করে এদের প্রতারণার বিষয়টি বুঝতে পারি।’

এসব দালালদের সঙ্গে চিকিৎসক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিকরা জড়িত বলে অভিযোগ করেন তিনি।

বরিশাল জেনারেল হাসপাতালে দাঁতের চিকিৎসক দেখাতে এসেছিলেন নগরীর কাশিপুর এলাকার তোহারুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘এসেছিলাম দাঁতের ডাক্তার দেখাতে।

কিন্তু নিজেকে মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভ পরিচয় দেয়া এক যুবক অনেক জোরাজুরি করে আমাকে হাসপাতালের সামনের একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে যায়।

‘এই নিয়ে তর্কাতর্কি হওয়ার পর ওই যুবক নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দেন। ঝামেলায় জড়ানো ডায়াগনস্টিক সেন্টারের লোকজনও নিজেদের সাংবাদিক পরিচয় দেন।

বিষয়টি নিয়ে আমার খটকা লাগলে খোঁজ খবর নিয়ে দেখি নামসর্বস্ব প্রতিষ্ঠানের কার্ড বানিয়ে এরা নিজেদের সাংবাদিক পরিচয় দেয়।

বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের কয়েকজন নার্স জানান, ‘এ হাসপাতালে যারা থাকেন তারা বেশ ফিটফাটভাবে চলাচল করেন। দেখলে বোঝার উপায় নেই, এরা রোগীর দালাল।’

সম্প্রতি নগরীর সদর রোডের সাউথ ইবনে সিনা ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয় এমনই এক রোগীকে।

খাদিজা বেগম নামের ওই রোগী নগরীর শুভ ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ডা. ভাস্কর সাহাকে দেখাতে আসলেও প্রতারণা করে তাকে সাউথ ইবনে সিনা ডায়াগনস্টিকের ডা. সুমন্তর কাছে নিয়ে যাওয়া হয়।

নানা পরীক্ষার নামে পরে ওই রোগীর সব টাকা রেখে দেয়া হয়। অভিযোগ করলে পুলিশ তার টাকা উদ্ধার করে দেয়।

বরিশালের গবেষক আনিসুর রহমান খান স্বপন বলেন, রোগীর দালাল হিসেবে যারা পরিচিত তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের কঠোর ব্যবস্থা নেয়া উচিত। গ্রাম থেকে মানুষ শহরে চিকিৎসার জন্য কষ্টের টাকা নিয়ে আসে। সেই টাকা প্রতারণার মাধ্যমে নিয়ে যায় এই চক্রগুলো।

এদের যারা ব্যাকআপ দিয়ে থাকে বা যাদের ইন্ধনে এরা এসব কাজ করে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া উচিত।’

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার শাহাবুদ্দিন খান বলেন, ‘রোগীদের ভুল বুঝিয়ে প্রতারণা করছে যারা তাদের বিরুদ্ধে আমরা শক্ত অবস্থানে রয়েছি। অভিযোগ পেলে তাৎক্ষণিক আমরা ব্যবস্থা নিয়ে থাকি।