সংবাদ শিরোনাম
 বরিশাল শেবাচিমে করোনা চিকিৎসা সেবার জন্য ৪ টি হাই ফ্লো নেজাল ক্যানোলা হস্তান্তর  ভোলায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ  বরিশালে বিজ্ঞান বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ করলেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী  বানারীপাড়ায় নবদিগন্তের মুজিব শতবর্ষে বৃক্ষ রোপন কর্মসূচি পালন  রিশাল নগরীতে রিক্সা-ভ্যান শ্রমিকদের ৭ দাবীতে বিক্ষোভ  পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে হামলা ও ছিনতাইয়ের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন  ভোলায় ইয়াবা ট্যাবলেটসহ তিন ব্যবসায়ি আটক  বরিশালে দু-চারজন লোক আছে, যারা মিডিয়াকে বিতর্কিত করছে-কাজী বাবুল  ভোলায় সাংবাদিকের উপর হামলার ঘটনায় ৬ জনকে আসামি করে মামলা  করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আসছে যুক্তরাজ্যে !
  • বরিশাল |১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

চাকুরীর প্রলোভনে পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে বরিশাল আসছিলো লাবনী

১২:৪৮ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০ বরিশাল, বরিশাল বিভাগ, লিড স্লাইড, শিরোনাম

শামীম আহমেদ ॥ ঢাকা থেকে বরিশালগামী এমভি পারাবত-১১ লঞ্চের কেবিনে ধর্ষণের হত্যা পর শ্বাসরোধ করে হত্যাকান্ডের শিকার নারীর লাশের পরিচয় মেলার পর পরিবারের সদস্য বাবা ও ভাইয়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। হত্যা কান্ডের ঘটনায় বরিশাল সদর নৌ থানার এসআই অলক চৌধুরী বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামী উল্লেখ করে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

 

 

মঙ্গলবার বিকেলে বরিশাল মর্গে ময়না তদন্ত শেষে ওই নারীর লাশ শনাক্ত করে তার পরিবারের সদস্যরা। রাতে তাদের কাছে তার লাশ হস্তান্তর করে নৌ পুলিশ।

 

 

নৌ পুলিশ সূত্র জানায়, নিহত নারীর নাম জান্নাতুল ফেরদৌস লাবনী (২৯)। তার বাবার নাম আব্দুল লতিফ মিয়া। দুই শিশু ছেলের জননী লাবনীর স্বামী একজন ইলেক্ট্রিশিয়ান।

 

বাবা আব্দুল লতিফ মিয়া ও মা মমতাজ চোধুরীর সঙ্গে ঢাকার পল্লবী-২ নম্বর এলাকার বাসায় থাকতেন। তাদের গ্রামের বাড়ি ভাঙ্গা এলাকায়। লাবনী উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছিলো। এক ভাই তিন বোনের মধ্যে লাবনী সবার ছোট।

 

 

চাকুরী পাওয়ার প্রলোভনে সোমবার ঢাকার সদরঘাট থেকে পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে লঞ্চযোগে বরিশাল আসছিলো লাবনী। ওই দিন রাত ৯টা পর্যন্ত লাবনীর সঙ্গে ফোনে কথা হয় তার বাবার। পরদিন সোমবার সকালে লঞ্চের ৩৯১ নং কেবিন থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

 

 

ওই নারীকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিআইডি’র ক্রাইম সিন ইউনিটের পরিদর্শক আল মামুনুর রশিদ। তবে তার সঙ্গে থাকা ওড়না ও ব্যাগসহ অন্যান্য আলামত নিয়ে যাওয়ায় পুলিশ তাৎক্ষণিক ওই নারীর পরিচয় উদঘাটন করতে পারেনি।

 

 

শেষ পর্যন্ত আংগুলের ছাপ অনুযায়ী তার পরিচয় উদঘাটন করে পুলিশ। সে অনুযায়ী তার স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করে পুলিশ। মঙ্গলবার বিকেলে বরিশাল মর্গের হিমঘরে ওই নারীর লাশ শনাক্ত করে তার বাবা আব্দুল লতিফ এবং ভাই মোক্তার মিয়া।

 

 

এর পূর্বে রোববার মর্গে ওই নারীর লাশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়। এ ঘটনায় ওইদিনই নৌ থানার উপ-পরিদর্শক অলক চৌধুরী বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামী উল্লেখ করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সদর নৌ থানার ওসি আবদুল্লাহ-আল মামুনকে।

 

 

তদন্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক আবদুল্লাহ-আল মামুন বলেন, স্বজনরা শনাক্ত করার পর ওই নারীর লাশ তার পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

 

এ ঘটনায় পুলিশের দায়ের করা মামলার তদন্ত চলছে। অভিযুক্তকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। অভিযুক্ত ঘাতককে সনাক্ত করতে পারলেও তদন্তের স্বার্থে তার পরিচয় প্রকাশে অপারগতা প্রকাশ করেন পুলিশ পরিদর্শক আবদুল্লাহ-আল মামুন।