• ৪ঠা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৯শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ১৯শে রজব, ১৪৪২ হিজরি

চরফ্যাশনে জমির মালিকানা দাবী করে সন্রাসীর হামলায় আহত ৩

বিডিক্রাইম
প্রকাশিত জানুয়ারি ২৪, ২০২১, ২০:৩৫ অপরাহ্ণ
চরফ্যাশনে জমির মালিকানা দাবী করে সন্রাসীর হামলায় আহত ৩

চরফ্যাসন প্রতিনিধি:

ভোলার চরফ্যাসন উপজেলা দক্ষিণ আইচা থানার চরমানিকা ইউনিয়নের দক্ষিণ আইচা মৌজা,ওয়ারিস সূত্রে জমির মালিকানা দাবী করে, জমির মালিকদের উপর সংঘব্দ্ধ হয়ে নারী পুরুষ আবাল বৃদ্ধ বনিতা মিলে ৩ জনকে পিটিয়ে গুরুতর আহতসহ নির্মাণাধীন ভবন ভেঙে গুড়িয়ে দেয়।

রোববার (২৪ জানুয়ারী) সকাল সাড়ে দশটার সময় এ ঘটনা ঘটে।
জমির মালিক আ.বারেক হাওলাদার জানান আমি দীর্ঘ ৩৫ বছর ধরে আমি ক্রয়ে সূত্রে মালিক হয়ে ভোগদখলে আছি। যার দাগ নং ২৫,খতিয়ান নং ৩৮৫ দিয়ারা।
তিনি আরও জানান,আমার দাতা লালমিয়া,ফরমুজল হক,সিদ্দিকের কাছ থেকে ৩৫ বছর আগে উক্ত দাগে সাড়ে ৬৮ শতাংশ জমি ক্রয় করি এই দাগে।

উক্ত জমি ১৯০ এফ ৭৭-৭৮ সনে সুলতান আহাম্মেদের ৫ একর জমি বন্দোবস্ত নেন।
বিভিন্ন সময় সুলতান আহাম্মেদ এর ওয়ারীশদের থেকে মো. সোলেমন, লালমিয়া,ফরমুজল হক, সিদ্দিক আহামেদ, ক্রয় করেন। ৭২/৯৫ দেওয়ানী মামলায় ১৯১৭ইং সনের রেকর্ড ম্যানুয়ালের ১২৯ নং রুল অনুযায়ী ৬ জুন ১৯৯৫ এদের নামে খতিয়ান খোলার জন্য আর্দেশ দেন।

ক্রেতা ও ওয়ারিশ সূত্রে মালিকগণ দখলে থেকে বিভিন্ন সময়ে জমি বিক্রি করেণ। উক্ত আর্দেশ নামায় জমির মালিকানা দাবীদার সেলিমের মা ফাতেমা বেগমের নাম কোথাও কারো ওয়ারিশ বা ক্রয় সূত্রে এবং আর্দেশ নাই, কিন্তু তারা ভূয়া বক্ত অন্যের জমি জবর দখলের চেষ্টায় উক্ত জমির মালিক আ.বারেক হাওলাদার এর উপর সন্রাসীর হামলা চালান।

একই জমি নিয়ে দীর্ঘ দিন দেওয়ানী মামলা ২৩৭ /১৫, এবং ৬৩/৮ এর একতরফা রায়ের আপিল ৭৭/১৭ মূলে যুগ্ন জেলা জজ দ্বিতীয় আদালতে দোতরফা সূত্রে ৬৩/৮ ও ২৩৭/১৫ মামলাটি খারিজ রদ ও রহিত করে ১৯/০১/২১ তারিখে আদালত আ. বারেক হাওলাদার অনুকূলে রায়ে ঘোষণা করে। উক্ত আর্দেশ অমান্য করে সন্রাসীরা সংঘবদ্ধ হয়ে দা লাঠিশোটা দেশিয় অস্র দিয়ে হামলা চালিয়ে ৩ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি সহ আ. বারেক হাওলাদার, মামুন হাওলাদার, সুমন হাওলাদার ও ৩ জনকে গুরুতর আহত করে। আহতদেরকে চরফ্যাসন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানান। প্রত্যক্ষদর্শী সাকিবুল জানান,নিজ বাড়ির দরজায় ভবনের কাজ করার সময় কিছু পুরুষ মহিলা এসে অতর্কিত হামলা চালায়, এই সময় স্থানীয় লোকজন এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গেলে তারাও হামলার শিকার হন।

এ বিষয় দক্ষিণ আইচা থানার (ওসি) তদন্ত মিলন কুমার ঘোষ এর সাথে আলাপ করলে তিনি জানান, খবর পেয়ে ঘটনা স্থানে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছি অভিযোগ পেলে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্তা নিবো।