• ২৮শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৪ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ১৪ই জমাদিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনাম
ভোলায় ইয়াবা ও গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক মঠবাড়িয়ায় চঞ্চল্যকর সোবাহান পেয়াদা হত্যা মামলার ২ পালাতক আসামী গ্রেফতার রাজাপুরে মাঠজুড়ে হলুদের সমারোহ, কৃষকের মুখে হাসি বানারীপাড়ায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীসহ ৩জন বহিস্কার ভোলায় বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ বেদে নারী আটক বরিশাল কারাগারে বিভিন্ন উপকরণ বিতরণ করেন নবাগত জেলা প্রশাসক কলাপাড়ায় বিদ্রোহী মেয়র প্রার্থী দিদার উদ্দিন আহমেদ আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার গলাচিপায় রামনাবাদ নদীর উপরে প্রস্তাবিত ব্রিজের জায়গা পরিদর্শনে এমপি শাহজাদা আমাদেরকে কথায় নয় কাজে বড় হতে হবে: ডিসি ট্রাফিক জাকির হোসেন আমাদের উদ্দেশ্য মানবাধিকারকে সমুন্নত রেখে আইন শৃংখলা ঠিক রাখতে হবে: ডিসি খাইরুল আলম

গলাচিপায় পৌরনির্বাচকে সামনে রেখে সীমানা বৃদ্ধি নিয়ে আদালতে মামলা

বিডিক্রাইম
প্রকাশিত জানুয়ারি ১৩, ২০২১, ১৬:১৯ অপরাহ্ণ
গলাচিপায় পৌরনির্বাচকে সামনে রেখে সীমানা বৃদ্ধি নিয়ে আদালতে মামলা

সঞ্জিব দাস,গলাচিপা ॥ গলাচিপা পৌরসভার সীমানা বৃদ্ধি নিয়ে একটি রিট মামলা দায়ের করেছেন গলাচিপা পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের নাগরিক এস এম আলী আহমেদ নামে এক ব্যক্তি। বর্তমান মেয়র আহসানুল হক তুহিন এই মামলাটি আপন ভায়রা এস এম আলী আহমেদকে দিয়ে করিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। মামলার বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কিছু কথা চালাচালিও হয়।

 

মামলা সূত্রে জানা যায়, গলাচিপা পৌর সভার ২নং ওয়ার্ডের নাগরিক এস এম আলী আহমেদ নামে এক ব্যক্তি গলাচিপা পৌরসভার সীমানা বৃদ্ধি নিয়ে মামলা দায়ের করেন গত ১০ নভেম্বর বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের হাই কোর্ট ডিভিশনে।

 

যার মামলা নং ৫০৫। ওই মামলায় আসামী করা হয়, যথাক্রমে সচিব, স্থানীয় সরকার বিভাগ গণ প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, শাহাবাগ, ঢাকা-১০০০, জেলা প্রশাসক পটুয়াখালী, মেয়র, গলাচিপা পৌরসভা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, গলাচিপা, সহকারী পরিচালক স্থানীয় সরকার বিভাগ, জেলা প্রশাসক কার্যালয়, পটুয়াখালী।

 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,যখন সারা দেশে পৌরসভা নির্বাচনের তফছিল ঘোষণা করা হচ্ছে ঠিক তখনই পৌর নির্বাচনের স্থগিতাদেশ আনার জন্যই নির্বাচনের পূর্ব মুহুর্তে এ মামলা দায়ের করেন। বর্তমান মেয়র আহসানুল হক তুহিন তার আপন ভায়রা এস এম আলী আহমেদকে দিয়ে হাইকোর্টে এ মামলা দায়ের করিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

 

এ কথা নিয়ে পৌরবাসীর মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। কালিকাপুরকে গলাচিপা পৌরসভার সাথে যুক্ত করা একটি হীন চেষ্টা ব্যতীত কিছুই নয় বলে অনেকে মনে করেন। পৌরসভার সবত্র এটা একটি দুরভিসন্ধি বলে টক অব দ্যা টাউনে পরিনত হয়েছে।

 

এ ব্যাপারে গলাচিপা পৌরসভার সম্ভব্য মেয়র প্রার্থী বাংলাদেশ যুবলীগের সহ-সম্পাদক মামুন আজাদ বলেন, পৌর এলাকার সীমানা কখনও আদালত কর্তৃক নির্ধারণ হয় না।

 

এটা প্রশাসনিক বিষয়। মেয়র তার ক্ষমতাকে দীর্ঘস্থায়ী করার জন্য নিকট আত্মীয়ের দ্বারা এই মামলার আশ্রয় নিয়েছেন। এই ধরনের জঘন্য, ঘৃনিত অপচেষ্টা রুখতে গলাচিপা পৌরবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।

 

গলাচিপা পৌরসভার নির্বাচনের স্থগিতাদেশ কেউ যাতে না আনতে পারে সে জন্য আইনী লড়াই করার ব্যক্ত করেন এই কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা।

 

এ ব্যাপারে গলাচিপা পৌরসভার বর্তমান মেয়র তুহিন খলিফা বলেন, তিনি জনগনের আস্থা,ভালোবাসা এবং মূল্যবান ভাটের মাধ্যমে মেয়র নির্বাচিত হয়ে নিষ্ঠা ও সততার সাথে দ্বায়িত্ব পালন করে আসছেন। হাইকোর্টে যে রিট পিটিশন দায়ের করা হয়েছে সেখানে তাকে ৩ নম্বর বিবাদী করা হয়েছে। এ মামলা সম্পর্কে তিনি অবগত নন। মামলাটি দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে বলে জানান।