• ২৭শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১২ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৬ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

এ বিজয় আমার নয় এ বিজয় আটঘর কুড়িয়ানাবাসীর- শ্রী মিঠুন হালদার।

বিডিক্রাইম
প্রকাশিত জুন ২২, ২০২১, ২০:৩১ অপরাহ্ণ
এ বিজয় আমার নয় এ বিজয় আটঘর কুড়িয়ানাবাসীর- শ্রী মিঠুন হালদার।

নেছারাবাদ প্রতিনিধি॥ পিরোজপুর নেছারাবাদ স্বরূপকাঠী উপজেলার ৪নং আটঘর-কুডড়িয়ানা ইউনিয়র পরিষদ নির্বাচনে মিঠুন হালদার বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন, এলাকাবাসীর আনন্দ উল্লাস ও মিছিল । সন্ধ্যা ৬টার পর বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে মিঠুন হালদারের জয়লাভের খবর আসতে থাকায় সমর্থকদের মাঝে আনন্দউল্লাস ছিলো চোখে পড়ার মতো, ,।আটঘর কুড়িয়ানা বাঁশ বলেন মিঠুন হালদার এর জয় উপজেলার সবার জয় আমরা মিঠুন হালদার কে বিশ্বাস করি, মনে প্রানে ভালবাসি।চুরান্ত ফলাফল প্রকাশের পর মিঠুর হালদার বলেন,

এই বিজয় আমার নয় এই বিজয় পুরো আটঘর-কুড়িয়ানা ইউনিয়ন বাসীর বিজয়।এ বিজয়ের মধ্য দিয়ে দীর্ঘ ১০ বছরের অপশাসনের অবসান ঘটলো এ বিজয় অন্যায়ের বিরুদ্ধে ন্যায়ের বিজয়। তিনি আরো বলেন, জনগণ আমাকে ভালোবেসে যে দায়িত্ব অর্পন করেছে সে দায়িত ¡আমি যথাযথ ভাবে পলন করবো ইনশাআল্লাহ। এবং সকল প্রকার সাম্প্রদায়িকতা ভুলে হিন্দু মুসলিম কাঁধে কাঁদ মিলিয়ে আটঘর-কুড়িয়ানা ইউনিয়ন কে একটি ডিজিটাল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলতে চাই।

উল্লেখ্য ১ম ধাপের ইউপি নির্বাচনে ৪নং আটঘর-কুড়িয়ানা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে শেখর সিকদার কে ২,২৯৯ ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মোঃ ইউসুফ হারুন জানান, মিঠুন হালদার (আনারস) প্রতীকে পেয়েছেন ৬,০৩৭ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী শেখর কুমার সিকদার (নৌকা) প্রতীকে ৩,৭৩৮ ভোট পেয়েছেন।

উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগ সহ-সভাপতি ও পিরোজপুর জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মিঠুন হালদারের এ বিজয়ে বিভিন্ন মহল থেকে অভিনন্দন জানাচ্ছেন।

মিঠুন হালদার আরো বলেন,সাম্প্রদায়িকতা নয় সম্প্রীতিতে বিশ্বাসী আটঘর কুড়িয়ানার তরুন নেতা মিঠুন হালদার। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মান ও তার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রূপকল্প বাস্তবায়নে তিনি বন্ধপরিকর। এ লক্ষ্যকে বুকে ধারণ করে দিন রাত চষে বেড়াচ্ছেন পুরো আটঘর কুড়িয়ানা ইউনিয়ন। তারমত একজন সৎ, যোগ্য, সুশিক্ষিত, উদারচেতা ধর্মবর্ণ বৈষম্যহীন, সচ্ছ সমাজসেবক একজন নির্লোভ মানুষকে চেয়ারম্যান হিসাবে পেতে চায় এলাকার সর্বস্তরের মানুষ।
বাংলার আপেল খ্যাত পেয়ারার আদি উৎপত্তিস্থল পিরোজপুর জেলার স্বরুপকাঠি উপজেলার আটঘর কুড়িয়ানা ইউনিয়ন। এ ইউনিয়নের গ্রামের একটি সচ্ছল পরিবারে তার জন্ম। বাবা ফনিভূষন হালদার মা পুস্প রানী মিস্ত্রি দুজনই ছিলেন শিক্ষক। দুই ভাইবোনের মধ্যে মিঠুন হালদার বড়। তিনি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা নিজ এলাকায়ই সম্পন্ন করেন। উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্রে বরিশাল বিএম কলেজ থেকে ২০০৩ সালে বোটানিতে এমএসসি পাশ করে কোন চাকুরীতে না গিয়ে এলাকায় ছুটে যান মা মাটি মানুষের টানে।

১নং থেকে ৯ নং ওয়ার্ড পর্যন্তে মানুষের দ্বারে গিয়ে গিয়ে আনারস মার্কায় ভোট চান, সে বলে আমি খাদক হিসেবে নয় সেবক হিসেবে আপনাদের পাশে থাকতে চাই আমি শ্রী মিঠুন হালদার, সব সময় আপনার পাশে আমাকে পাবেন । শ্রী মিঠুন হালদার , সংবাদকর্মীদের প্রশ্নের উত্তরে বলেন, আমি অন্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে আসছি এবং করব,মাদক ইভটিজিং, বাল্যবিবাহ, ও সব ধরনের অপরাধ অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবো।আমাদের আটঘর কুড়িয়ানা অনেক অসমাপ্ত কাজগুলো পড়ে আছে আমি সমাপ্ত করার চেষ্টা করব। শুধু তাই নয় আমি সবসময় মানুষের সেবা করে যেতে চাই, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ গড়া আমি এক সৈনিক, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভালোবাসা বুকে ধারণ করে মাননীয় মন্ত্রী শম রেজাউল করিম স্যারের ভালোবাসা নিয়ে আজও আমি নির্বাচন মাঠে আনারস প্রতীক পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যানের পদে মানুষের মন জুগিয়ে ছিল ভালোবাসা পেয়েছি যদি নির্বাচিত হতে পারলে।মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করব ইনশাআল্লাহ।

জনগণ আমাকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করেছে, এখন আমার পালা অসহায় গরীবদের পাশে দাঁড়াবার এখন আমার লক্ষ্য।ভালবাসি সবার প্রতি আমার দোয়া ও ভালোবাসা থাকবে। আজ আমার জন্য যারা কাজ করেছে তাদের কাছে আমি ঋণী হয়ে আছি। তাই আমি তাদের পাশে দাঁড়াবার সময় এখন আমার।সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন আমি যেন আপনার পাশে দাঁড়িয়ে কাঁধে কাঁধ রেখে হাতে হাত রেখে কাজ করতে পারি ইনশাআল্লাহ।